ঢাকা ০২:০৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তারুণ্য সবারই আরাধ্য, তবে ধরে রাখা সত্যিই মুশকিল

যে ভাবে তারুণ্য বয়স ধরে রাখার উপায়

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৩:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪ ৩৮ বার পড়া হয়েছে

বার্ধক্য শব্দটি মনে পড়লেই আমাদের চোখের সামনে ভেসে ওঠে বয়স্ক মানুষের ছবি—যাঁদের শারীরিক শক্তি অনেকটাই ক্ষয় হয়েছে এবং যাঁদের মধ্যে শারীরিক ও মানসিক দুর্বলতার লক্ষণ স্পষ্ট। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে বাহ্যিক পরিবর্তনের পাশাপাশি শরীরের অভ্যন্তরেও ঘটে নানা পরিবর্তন। কিন্তু এসব পরিবর্তন দৃষ্টির অগোচরে থাকায় অনেকেই তাদের কথা ভাবেন না।

নানা উপায়ে ত্বকের যত্ন নেওয়ার চেয়ে বেশি জরুরি হলো নিজের দেহ এবং মনের প্রতি সঠিকভাবে যত্নশীল হওয়া। তারুণ্য ধরে রাখতে সঠিক খাদ্যাভ্যাস, নিয়মিত ব্যায়াম, মানসিক যত্ন, এবং সর্বোপরি নিজেকে ভালোবাসার চর্চা অপরিহার্য। বাস্তবতা হলো, বয়স বাড়বেই এবং বার্ধক্য আসবেই। তবে সবকিছুর পরও বার্ধক্যজনিত জটিলতাকে যতটা সম্ভব কমিয়ে এনে সুস্থ থাকাই হলো তারুণ্যের মূলমন্ত্র।

গবেষণায় পাওয়া গেছে নতুন

তারুণ্য ধরে রাখার জন্য সঠিক খাবার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া ও জাপানের গবেষকদের সম্মিলিত এক গবেষণায় এমনটাই দেখা গেছে। ‘ফ্রন্টিয়ারস ইন নিউট্রিশন’ জার্নালে প্রকাশিত এই গবেষণা থেকে জানা যায়, স্বাস্থ্যকর জাপানি ধারার খাবার তারুণ্য ধরে রাখতে সহায়ক। তবে, তারুণ্য ধরে রাখতে রোজ সুশি খাওয়ার প্রয়োজন নেই। জাপানি ধারার এসব খাবারে প্রচুর উদ্ভিজ্জ উপাদান থাকে। তাই তারুণ্য ধরে রাখতে আপনার খাদ্যতালিকায় উদ্ভিদজাত খাবার বাড়ান।

জেনে নিন বিস্তারিত

৬৫ থেকে ৭২ বছর বয়সী ব্যক্তিদের ওপর এই গবেষণা করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে একদলের খাদ্যাভ্যাস পাশ্চাত্য ধারার, অর্থাৎ, তাঁরা প্রচুর পরিমাণে মাংস, প্রক্রিয়াজাত মাংস, ডিম, এবং মেয়োনেজ দেওয়া খাবার খান। অপর দলের খাদ্যাভ্যাস স্বাস্থ্যকর জাপানি ধারার, যাতে প্রচুর সবজি, ফলমূল, সামুদ্রিক শৈবাল, এবং জাপানের ঐতিহ্যবাহী ‘নাত্তো’ (সেদ্ধ সয়াবিন দিয়ে তৈরি) থাকে। গবেষণার ফলাফল বলছে, যাঁরা এই জাপানি ধারার খাবার খেয়ে অভ্যস্ত, তাঁদের ওপর বার্ধক্যের প্রভাব সবচেয়ে কম পড়েছে। তাই আপনি যদি সত্যিই তারুণ্য ধরে রাখতে চান, আজ থেকেই রোজকার খাদ্যতালিকায় উদ্ভিজ্জ খাবারের পরিমাণ বাড়িয়ে দিন।

জাপানি মূলমন্ত্রে দেশীয় ধারা

ঢাকার আজিমপুরের গভর্নমেন্ট কলেজ অব অ্যাপ্লায়েড হিউম্যান সায়েন্সের খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শম্পা শারমিন খান বলেন, ‘সুস্থ থাকতে রোজ শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবে। রুটি আর কয়েক পদের রঙিন সবজি দিয়ে সকালটা শুরু করা যায়। আমাদের দেশের প্রচলিত নাশতা রুটি-আলুভাজির গণ্ডি থেকে বেরিয়ে বরং মিশ্র সবজি খাওয়া ভালো। এতে পুষ্টি সঠিকভাবে মিলবে।

এই পুষ্টিবিদ আরও জানান, দুপুরে ও রাতে প্রচুর সবজি খেতে হবে। ভাত, রুটি, আলু, বিস্কুট অর্থাৎ শর্করাজাতীয় সব খাবারের পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে। কাজের বিরতিতে নাশতা হিসেবে ফলমূল খাওয়াই সবচেয়ে ভালো। চর্বি, মাখন, মেয়োনেজ খাওয়া থেকে যতটা সম্ভব বিরত থাকতে হবে। ‘আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট’ অর্থাৎ যে চর্বি কক্ষ তাপমাত্রায় তরল থাকে, সেগুলো শরীরের জন্য উপকারী। মাছের তেল খুবই স্বাস্থ্যকর। এছাড়া, সুস্থ থাকতে শরীরের প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি উপাদান সঠিক পরিমাণে পেতে কাঁচা সালাদ খাওয়া প্রয়োজন। সালাদের ড্রেসিং করতে পারেন জলপাই তেল বা টক দই দিয়ে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

আপলোডকারীর তথ্য

তারুণ্য সবারই আরাধ্য, তবে ধরে রাখা সত্যিই মুশকিল

যে ভাবে তারুণ্য বয়স ধরে রাখার উপায়

আপডেট সময় : ০৯:৪৩:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

বার্ধক্য শব্দটি মনে পড়লেই আমাদের চোখের সামনে ভেসে ওঠে বয়স্ক মানুষের ছবি—যাঁদের শারীরিক শক্তি অনেকটাই ক্ষয় হয়েছে এবং যাঁদের মধ্যে শারীরিক ও মানসিক দুর্বলতার লক্ষণ স্পষ্ট। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে বাহ্যিক পরিবর্তনের পাশাপাশি শরীরের অভ্যন্তরেও ঘটে নানা পরিবর্তন। কিন্তু এসব পরিবর্তন দৃষ্টির অগোচরে থাকায় অনেকেই তাদের কথা ভাবেন না।

নানা উপায়ে ত্বকের যত্ন নেওয়ার চেয়ে বেশি জরুরি হলো নিজের দেহ এবং মনের প্রতি সঠিকভাবে যত্নশীল হওয়া। তারুণ্য ধরে রাখতে সঠিক খাদ্যাভ্যাস, নিয়মিত ব্যায়াম, মানসিক যত্ন, এবং সর্বোপরি নিজেকে ভালোবাসার চর্চা অপরিহার্য। বাস্তবতা হলো, বয়স বাড়বেই এবং বার্ধক্য আসবেই। তবে সবকিছুর পরও বার্ধক্যজনিত জটিলতাকে যতটা সম্ভব কমিয়ে এনে সুস্থ থাকাই হলো তারুণ্যের মূলমন্ত্র।

গবেষণায় পাওয়া গেছে নতুন

তারুণ্য ধরে রাখার জন্য সঠিক খাবার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া ও জাপানের গবেষকদের সম্মিলিত এক গবেষণায় এমনটাই দেখা গেছে। ‘ফ্রন্টিয়ারস ইন নিউট্রিশন’ জার্নালে প্রকাশিত এই গবেষণা থেকে জানা যায়, স্বাস্থ্যকর জাপানি ধারার খাবার তারুণ্য ধরে রাখতে সহায়ক। তবে, তারুণ্য ধরে রাখতে রোজ সুশি খাওয়ার প্রয়োজন নেই। জাপানি ধারার এসব খাবারে প্রচুর উদ্ভিজ্জ উপাদান থাকে। তাই তারুণ্য ধরে রাখতে আপনার খাদ্যতালিকায় উদ্ভিদজাত খাবার বাড়ান।

জেনে নিন বিস্তারিত

৬৫ থেকে ৭২ বছর বয়সী ব্যক্তিদের ওপর এই গবেষণা করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে একদলের খাদ্যাভ্যাস পাশ্চাত্য ধারার, অর্থাৎ, তাঁরা প্রচুর পরিমাণে মাংস, প্রক্রিয়াজাত মাংস, ডিম, এবং মেয়োনেজ দেওয়া খাবার খান। অপর দলের খাদ্যাভ্যাস স্বাস্থ্যকর জাপানি ধারার, যাতে প্রচুর সবজি, ফলমূল, সামুদ্রিক শৈবাল, এবং জাপানের ঐতিহ্যবাহী ‘নাত্তো’ (সেদ্ধ সয়াবিন দিয়ে তৈরি) থাকে। গবেষণার ফলাফল বলছে, যাঁরা এই জাপানি ধারার খাবার খেয়ে অভ্যস্ত, তাঁদের ওপর বার্ধক্যের প্রভাব সবচেয়ে কম পড়েছে। তাই আপনি যদি সত্যিই তারুণ্য ধরে রাখতে চান, আজ থেকেই রোজকার খাদ্যতালিকায় উদ্ভিজ্জ খাবারের পরিমাণ বাড়িয়ে দিন।

জাপানি মূলমন্ত্রে দেশীয় ধারা

ঢাকার আজিমপুরের গভর্নমেন্ট কলেজ অব অ্যাপ্লায়েড হিউম্যান সায়েন্সের খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শম্পা শারমিন খান বলেন, ‘সুস্থ থাকতে রোজ শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবে। রুটি আর কয়েক পদের রঙিন সবজি দিয়ে সকালটা শুরু করা যায়। আমাদের দেশের প্রচলিত নাশতা রুটি-আলুভাজির গণ্ডি থেকে বেরিয়ে বরং মিশ্র সবজি খাওয়া ভালো। এতে পুষ্টি সঠিকভাবে মিলবে।

এই পুষ্টিবিদ আরও জানান, দুপুরে ও রাতে প্রচুর সবজি খেতে হবে। ভাত, রুটি, আলু, বিস্কুট অর্থাৎ শর্করাজাতীয় সব খাবারের পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে। কাজের বিরতিতে নাশতা হিসেবে ফলমূল খাওয়াই সবচেয়ে ভালো। চর্বি, মাখন, মেয়োনেজ খাওয়া থেকে যতটা সম্ভব বিরত থাকতে হবে। ‘আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট’ অর্থাৎ যে চর্বি কক্ষ তাপমাত্রায় তরল থাকে, সেগুলো শরীরের জন্য উপকারী। মাছের তেল খুবই স্বাস্থ্যকর। এছাড়া, সুস্থ থাকতে শরীরের প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি উপাদান সঠিক পরিমাণে পেতে কাঁচা সালাদ খাওয়া প্রয়োজন। সালাদের ড্রেসিং করতে পারেন জলপাই তেল বা টক দই দিয়ে।