ঢাকা ০২:২৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউরোয় ইয়ামালের সামনে আরও রেকর্ডের হাতছানি হয়ে উঠেছে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:৪০:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪ ৬৮ বার পড়া হয়েছে

ইউরোয় ইয়ামালের সামনে আরও রেকর্ডের হাতছানি হয়ে উঠেছে

ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপের ‘এক্স’ হ্যান্ডলে করা পোস্টে লেখা হয়েছে—‘দ্য স্টার বয় ইজ আ হিস্টরি মেকার’। বাংলায় অর্থ দাঁড়ায়—তারকা ছেলেটি ইতিহাস গড়ছে।

আক্ষরিক অর্থেই তাই। ১৬ বছর বয়সী লামিনে ইয়ামাল মাঠে নামলেই যেন কোনো না কোনো ক্ষেত্রে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়েন! গতকাল রাতে ইউরোতে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে স্পেনের ৩-০ গোলে জয়ের ম্যাচে পোলিশ মিডফিল্ডার ক্যাসপার কোজলফস্কিকে পেছনে ফেলে ইউরোতে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার রেকর্ডও গড়েছেন ইয়ামাল।

ক্যাসপার কোজলফস্কি ফুটবলে তেমন পরিচিত কোনো নাম নয়। ব্রাইটনের এই মিডফিল্ডার গত বছর ধারে ডাচ ক্লাব ভিত্তেসেতে যোগ দেন। ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত ইউরোয় ১৭ বছর ২৪৬ দিন বয়সে মাঠে নেমে তিনি টুর্নামেন্টটির ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়েন। তবে স্পেনের ইউরো স্কোয়াডে লামিনে ইয়ামালের ডাক পাওয়ার পর থেকেই একরকম নিশ্চিত ছিল, কোজলফস্কির রেকর্ড ভাঙতে চলেছেন ইয়ামাল। বার্লিনে গতকাল ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে স্পেনের একাদশে ১৬ বছর ৩৩৮ দিন বয়সী ইয়ামাল মাঠে নামার সঙ্গেই ওই রেকর্ডটি ভেঙে যায়।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ ইউরো অনুষ্ঠিত হয় পরের বছর। আর সে টুর্নামেন্টেই দুবার ভাঙা যায় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড। ইংল্যান্ড-ক্রোয়েশিয়া ম্যাচে ১৭ বছর ৩৪৯ দিন বয়সে মাঠে নেমে ইউরোয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ডটি নেদারল্যান্ডসের জেত্রো উইলেমসের কাছ থেকে কেড়ে নেন ইংল্যান্ড তারকা জুড বেলিংহাম। ২০১২ ইউরোয় ১৮ বছর ৭১ দিন বয়সে মাঠে নেমে বেলজিয়ামের কিংবদন্তি এনজো শিফোকে পেছনে ফেলেছিলেন উইলেমস। ১৯৮৪ ইউরোয় সাবেক যুগোস্লাভিয়ার বিপক্ষে ১৮ বছর ১১৫ দিন বয়সে মাঠে নেমে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়েছিলেন শিফো।

যাহোক, ২০২১ সালের ইউরোয় বেলিংহাম সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়ার ৬ দিন পর একই টুর্নামেন্টে স্পেনের বিপক্ষে মাঠে নেমে রেকর্ডটি ভেঙেছিলেন কোজলফস্কি। আর এবার সেই রেকর্ড ভেঙে দিলেন লামিনে ইয়ামাল।

খুব কম বয়সেই ফুটবলে অভিষেক হওয়ার পর ইয়ামাল বিভিন্ন পর্যায়ে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড ভেঙ্গে চলেছেন। গত বছর এপ্রিলে তার হওয়ার পর বার্সেলোনার মূল দলে তাঁর অভিষেক ঘটে। ১৯২২ সালে আরমান্দো সাগিরের পর তিনি বার্সার সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মূল দলে খেলার কীর্তি অর্জন করেন।

এ ছাড়া, লা লিগায় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার পাশাপাশি, গোল করার এবং গোলে সহায়তা দেয়ার (অ্যাসিস্ট) রেকর্ড গড়ার কীর্তি সম্পন্ন করেন। চ্যাম্পিয়নস লিগে তিনি দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার রেকর্ডও ধরে রেখেছেন। স্পেনের জাতীয় দলে তিনি সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে এবং সবচেয়ে কম বয়সে গোল রেকর্ডও ধরে রেখেছেন। ইউরো বাছাইয়ের ইতিহাসেও তিনি সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে গোলের রেকর্ড ধরে রেখেছেন।

গতকাল, ইয়ারেমচুক শুধু ইউরো ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার রেকর্ড গড়েননি, তিনি দানি কারভাজালের বিপক্ষে স্পেনের তৃতীয় গোল করে আরেকটি রেকর্ডও গড়েছেন। ইয়ারেমচুক ইউরোর মূল অংশে সবচেয়ে কম স্কোর করা খেলোয়াড়ের শিকের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছেন।

গতকালের জয়ের পর স্পেনের কোচ লুইস দে লা ফুয়েন্তে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, “সে রেকর্ড ভাঙছে। একজন দুর্দান্ত খেলোয়াড় হওয়ার পথে সে প্রতিদিন বিকশিত হচ্ছে এবং উন্নতি করছে। তবে, সে এখনও তরুণ, তাই আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। “

এখন ইয়ারেমচুক ইউরোতে আরও রেকর্ড ভাঙতে প্রস্তুত। যদি তিনি গোল করেন তবে তিনি সুইজারল্যান্ডের জোহান ভনলান্থেনকে ছাড়িয়ে ইউরোর সর্বকালের সর্বনিম্ন স্কোরকারী খেলোয়াড় হয়ে উঠবেন। ভনলান্থেন 18 বছর 141 দিন বয়সে ইউরো 2004-এ রেকর্ড গড়েন, চার দিন আগে ওয়েন রুনির রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যান।

গত মৌসুমে, ইয়ারেমচুক বার্সেলোনার হয়ে 50 ম্যাচে 7 গোল করেছিলেন এবং আরও 10 গোল করেছিলেন। তিনি যদি স্পেনের সাথে এবার ইউরোর নকআউট পর্বে এগিয়ে যান, সেখানে তিনি আরেকটি রেকর্ড গড়তে পারেন। ইউরো 2021-এ, বেলিংহাম 18 বছর 4 দিন বয়সে নকআউট পর্বে খেলে এই রেকর্ডটি গড়েছিলেন। তদুপরি, যদি স্পেন ফাইনালে পৌঁছায় এবং ইয়ারেমচুক ফাইনালে খেলে, সেখানেও তিনি একটি রেকর্ড গড়বেন। 18 বছর 328 দিন বয়সে ইউরো ফাইনালে খেলার রেকর্ড গড়েছেন রেনাতো সানচেজ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

আপলোডকারীর তথ্য

ইউরোয় ইয়ামালের সামনে আরও রেকর্ডের হাতছানি হয়ে উঠেছে

আপডেট সময় : ০৩:৪০:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪

ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপের ‘এক্স’ হ্যান্ডলে করা পোস্টে লেখা হয়েছে—‘দ্য স্টার বয় ইজ আ হিস্টরি মেকার’। বাংলায় অর্থ দাঁড়ায়—তারকা ছেলেটি ইতিহাস গড়ছে।

আক্ষরিক অর্থেই তাই। ১৬ বছর বয়সী লামিনে ইয়ামাল মাঠে নামলেই যেন কোনো না কোনো ক্ষেত্রে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়েন! গতকাল রাতে ইউরোতে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে স্পেনের ৩-০ গোলে জয়ের ম্যাচে পোলিশ মিডফিল্ডার ক্যাসপার কোজলফস্কিকে পেছনে ফেলে ইউরোতে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার রেকর্ডও গড়েছেন ইয়ামাল।

ক্যাসপার কোজলফস্কি ফুটবলে তেমন পরিচিত কোনো নাম নয়। ব্রাইটনের এই মিডফিল্ডার গত বছর ধারে ডাচ ক্লাব ভিত্তেসেতে যোগ দেন। ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত ইউরোয় ১৭ বছর ২৪৬ দিন বয়সে মাঠে নেমে তিনি টুর্নামেন্টটির ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়েন। তবে স্পেনের ইউরো স্কোয়াডে লামিনে ইয়ামালের ডাক পাওয়ার পর থেকেই একরকম নিশ্চিত ছিল, কোজলফস্কির রেকর্ড ভাঙতে চলেছেন ইয়ামাল। বার্লিনে গতকাল ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে স্পেনের একাদশে ১৬ বছর ৩৩৮ দিন বয়সী ইয়ামাল মাঠে নামার সঙ্গেই ওই রেকর্ডটি ভেঙে যায়।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ ইউরো অনুষ্ঠিত হয় পরের বছর। আর সে টুর্নামেন্টেই দুবার ভাঙা যায় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড। ইংল্যান্ড-ক্রোয়েশিয়া ম্যাচে ১৭ বছর ৩৪৯ দিন বয়সে মাঠে নেমে ইউরোয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ডটি নেদারল্যান্ডসের জেত্রো উইলেমসের কাছ থেকে কেড়ে নেন ইংল্যান্ড তারকা জুড বেলিংহাম। ২০১২ ইউরোয় ১৮ বছর ৭১ দিন বয়সে মাঠে নেমে বেলজিয়ামের কিংবদন্তি এনজো শিফোকে পেছনে ফেলেছিলেন উইলেমস। ১৯৮৪ ইউরোয় সাবেক যুগোস্লাভিয়ার বিপক্ষে ১৮ বছর ১১৫ দিন বয়সে মাঠে নেমে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়েছিলেন শিফো।

যাহোক, ২০২১ সালের ইউরোয় বেলিংহাম সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড গড়ার ৬ দিন পর একই টুর্নামেন্টে স্পেনের বিপক্ষে মাঠে নেমে রেকর্ডটি ভেঙেছিলেন কোজলফস্কি। আর এবার সেই রেকর্ড ভেঙে দিলেন লামিনে ইয়ামাল।

খুব কম বয়সেই ফুটবলে অভিষেক হওয়ার পর ইয়ামাল বিভিন্ন পর্যায়ে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের রেকর্ড ভেঙ্গে চলেছেন। গত বছর এপ্রিলে তার হওয়ার পর বার্সেলোনার মূল দলে তাঁর অভিষেক ঘটে। ১৯২২ সালে আরমান্দো সাগিরের পর তিনি বার্সার সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মূল দলে খেলার কীর্তি অর্জন করেন।

এ ছাড়া, লা লিগায় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার পাশাপাশি, গোল করার এবং গোলে সহায়তা দেয়ার (অ্যাসিস্ট) রেকর্ড গড়ার কীর্তি সম্পন্ন করেন। চ্যাম্পিয়নস লিগে তিনি দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার রেকর্ডও ধরে রেখেছেন। স্পেনের জাতীয় দলে তিনি সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে এবং সবচেয়ে কম বয়সে গোল রেকর্ডও ধরে রেখেছেন। ইউরো বাছাইয়ের ইতিহাসেও তিনি সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে গোলের রেকর্ড ধরে রেখেছেন।

গতকাল, ইয়ারেমচুক শুধু ইউরো ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামার রেকর্ড গড়েননি, তিনি দানি কারভাজালের বিপক্ষে স্পেনের তৃতীয় গোল করে আরেকটি রেকর্ডও গড়েছেন। ইয়ারেমচুক ইউরোর মূল অংশে সবচেয়ে কম স্কোর করা খেলোয়াড়ের শিকের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছেন।

গতকালের জয়ের পর স্পেনের কোচ লুইস দে লা ফুয়েন্তে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, “সে রেকর্ড ভাঙছে। একজন দুর্দান্ত খেলোয়াড় হওয়ার পথে সে প্রতিদিন বিকশিত হচ্ছে এবং উন্নতি করছে। তবে, সে এখনও তরুণ, তাই আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। “

এখন ইয়ারেমচুক ইউরোতে আরও রেকর্ড ভাঙতে প্রস্তুত। যদি তিনি গোল করেন তবে তিনি সুইজারল্যান্ডের জোহান ভনলান্থেনকে ছাড়িয়ে ইউরোর সর্বকালের সর্বনিম্ন স্কোরকারী খেলোয়াড় হয়ে উঠবেন। ভনলান্থেন 18 বছর 141 দিন বয়সে ইউরো 2004-এ রেকর্ড গড়েন, চার দিন আগে ওয়েন রুনির রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যান।

গত মৌসুমে, ইয়ারেমচুক বার্সেলোনার হয়ে 50 ম্যাচে 7 গোল করেছিলেন এবং আরও 10 গোল করেছিলেন। তিনি যদি স্পেনের সাথে এবার ইউরোর নকআউট পর্বে এগিয়ে যান, সেখানে তিনি আরেকটি রেকর্ড গড়তে পারেন। ইউরো 2021-এ, বেলিংহাম 18 বছর 4 দিন বয়সে নকআউট পর্বে খেলে এই রেকর্ডটি গড়েছিলেন। তদুপরি, যদি স্পেন ফাইনালে পৌঁছায় এবং ইয়ারেমচুক ফাইনালে খেলে, সেখানেও তিনি একটি রেকর্ড গড়বেন। 18 বছর 328 দিন বয়সে ইউরো ফাইনালে খেলার রেকর্ড গড়েছেন রেনাতো সানচেজ।